তারিখ : ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার

সংবাদ শিরোনাম

বিস্তারিত বিষয়

নান্দাইলে ভাতিজার হাতে চাচা খুনের ঘটনা (আপডেট)

নান্দাইলে ভাতিজার হাতে চাচা খুনের ঘটনায় বাদ পড়া আসামীদের সংযুক্ত করার আবেদন,উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা   
[ভালুকা ডট কম : ০৭ নভেম্বর]
ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা চন্দ্রপুর গ্রামে ভাতিজার হাতে চাচা খুনের ঘটনায় জড়িত বাদ পড়া আসামাীদের নাম দায়েরকৃত মামলায় সংযুক্ত করার আবেদন জানান নিহতের মা বাদী জুবেদা খাতুন ও ৩ সন্তানের জননী অন্তস্বত্তা স্ত্রী তাসলিমা। পাশাপাশি দ্রুত বিচার আইনে উল্লেখিত আসামীদের গ্রেফতার সহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। বর্তমানে বাদীর পরিবারকে মামলা তুলে আনার জন্য ও ঘটনার সাথে জড়িতদের নাম মামলায় অন্তর্ভূক্তি না করার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকী দিয়ে আসছে বলে স্ত্রী তাসলিমা আক্তার জানায়।

থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, নিহত ব্যক্তি চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত কাছুম আলীর পুত্র নিরীহ কৃষক মাহতাব উদ্দিন (৪৫) তার চাচাতো ভাই খোকন মিয়ার পুত্র ভাতিজা জুয়েলের রামদা’র কোপে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকায় চিকিৎসাধীনকালে ২৩দিন পর মৃত্যুবরণ করে। জমিসংক্রান্ত ও পারিবারিক শত্রুতার জের গত ৬ই অক্টোবর ১৯ইং নিহত মাহতাব উদ্দিন তার নিজ বাশঁঝাড়ে বাশঁ কাটতে গেলে একই গ্রামের তার চাচাতো ভাই খোকন মিয়া, ভাতিজা জুয়েল মিয়া, পাপিয়া আক্তার, মনোয়ারা ও তার ভাতিজি’র বর নয়ন মিয়া, আলতু, শফিক, ফারুক, আনিছুর রহমান আঞ্জু ও দালাল মিয়া পরিকল্পিতভাবে মাহতাব উদ্দিন ও তার পরিবারের উপর হামলা চালায়। এতে মাহতাব, স্ত্রী তাসলিমা ও ভাই হাতাব উদ্দিন গুরুতর জখম আহত হয়। পরে আহতদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে মাহতাব উদ্দিনের অবস্থা অত্যন্ত গুরুতর হওয়া তাকে ঢাকা হাসপাতালে রেফার্ড করা হয় এবং সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৩ দিন পর মারা যান।

নিহতের মা জুবেদা খাতুন (৫৫) ঐ হামলার দিনই নান্দাইল মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করলে পুলিশ ৪ জনকে গ্রেফতার করে। কিন্তু পরবর্তীতে আসামীরা জামিনে এসে বাদীর পরিবারকে বিভিন্ন ধরনের হুমকী দিয়ে আসছে।

নিহতের স্ত্রী তাসলিমা আক্তার জানান, আমি হাসপাতালে থাকায় আমার বয়োবৃদ্ধ শ্বাশুরী আসামীদের নাম ঠিকমত বলতে না পারায় উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত বাদ পড়া আসামীদের মামলায় সংযুক্তি সহ প্রকৃত অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করছি।

তিনি আরোও জানান,স্থানীয় ইউপি সদস্য আনিছুর রহমান আঞ্জুর হুকুমে ও বলয়ে উল্লেখিত আসামীরা আমার স্বামীকে খুন করে।তবে এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য আঞ্জু বলেন, পারিবারিক কলহে তাদের মধ্যেই এ অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে। এখানে একটি কুচক্রী মহল অহেতুক আমার নাম জড়িয়ে দেবার চেষ্টা চালাচ্ছে।#





সতর্কীকরণ

সতর্কীকরণ : কলাম বিভাগটি ব্যাক্তির স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য,আমরা বিশ্বাস করি ব্যাক্তির কথা বলার পূর্ণ স্বাধীনতায় তাই কলাম বিভাগের লিখা সমূহ এবং যে কোন প্রকারের মন্তব্যর জন্য ভালুকা ডট কম কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় । প্রত্যেক ব্যাক্তি তার নিজ দ্বায়ীত্বে তার মন্তব্য বা লিখা প্রকাশের জন্য কর্তৃপক্ষ কে দিচ্ছেন ।

কমেন্ট

অপরাধ জগত বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

  • ভালুকা ডট কম এর নতুন কাজ আপনার কাছে ভাল লাগছে ?
    ভোট দিয়েছেন ১২২১ জন
    হ্যাঁ
    না
    মন্তব্য নেই